রেশন কার্ড থাকার পরেও মিলছিল না রেশন। প্রায় তিনমাস ধরে রেশন পরিষেবা থেকে বঞ্চিত ছিলেন পাত্রসায়েরের বৃদ্ধ দম্পতি। জীবিত থেকেও কিভাবে তারা রেশন কার্ডে হয়ে গিয়েছিলেন মৃত। বাঁকুড়ার পাত্রসায়েরের ৮৪ বছরের শঙ্কর পাল ও তাঁর ৭৭ বছরের স্ত্রী পিরুবালা পাল। নিজেদের জীবিত থাকার প্রমাণ দিতে তাঁরা বারবার ছুটে গেছেন স্থানীয় রেশন ডিলার থেকে শুরু করে স্থানীয় বিডিও অফিসে। তাতে কাজ অবশ্য কিছু হয়নি। মঙ্গলবার এই খবর সম্প্রচারের পর রাতেই বৃদ্ধ দম্পতির রেশন কার্ড জ্যান্ত হয়ে দেওয়া হল রেশন। মঙ্গলবার রাতেই বৃদ্ধ দম্পতির বাড়িতে পৌঁছে রেশন কার্ডের সমস্যা সমাধান করে রেশন পরিষেবা চালু করে দেওয়া হয়।

পাত্রসায়ের থানার নারায়নপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের পাঁচপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শঙ্কর পাল ও পিরুবালা পাল এর অভাবের সংসার। এই গরীবের সংসারে রেশন দোকান থেকে প্রাপ্ত চাল আর গম ছিল অন্যতম ভরসা। কিন্তু মাস তিনেক আগেই হঠাৎ করে রেশন দোকান থেকে চাল ও গম দেওয়া বন্ধ করে দেওয়া হয় ওই বৃদ্ধ দম্পতিকে। জানতে গেলে স্থানীয় রেশন ডিলার জানান খাদ্য দফতরের খাতায় কার্ডে লাল দাগ পড়ে গেছে অর্থাৎ কার্ডগুলি আর জীবিত নেই। তারাও মৃত। জীবিত থেকেও মৃত শুনতে হয়ে নিজেদের জীবিত প্রমান করতে নথি নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছেন সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দফতরে তাতে কাজ কিছু হয়নি বলেই অভিযোগ। খবর সম্প্রচারের পরে নড়েচড়ে বসে স্থানীয় প্রশাসন। বৃদ্ধ দম্পতির রেশন কার্ডের সমস্যা মঙ্গলবার রাতেই সমাধান করে দেওয়া হয়। পৌঁছে দেওয়া হয় রেশন সামগ্রী। খুশি বৃদ্ধ দম্পতি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

twenty − eighteen =