বিদ্যুৎ বিল বাকি রয়েছে বলে মেসেজ এসেছিল মোবাইলে । হোয়াটস অ্যাপে পাঠানো হয়েছিল মেসেজ। বলা হয়েছিল বিল না দিলে বিদ্যুৎ সংযোগ কেটে দেওয়া হবে। হোয়াটস অ্যাপে পাঠানো নম্বরে ফোন করেছিলেন যুবক। তখনই বুঝতে পারেন যে তিনি প্রতারিত হয়েছেন। তারপর বিল না দিয়েই প্রতারিতদের ফোন কেটে দেন তিনি। অভিযোগ, তিনি টাকা না দেওয়ায় তাঁকে ফোন করে হুমকি দিতে শুরু করে প্রতরিতরা। সঙ্গে সঙ্গে শনিবার সকালেই নরেন্দ্রপুর থানায় গিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন ওই যুবক।প্রতিনিয়তই নতুন নতুন ভাবে প্রতারণার ছক কষছে প্রতারিতরা। আর তার মধ্যে নতুন সংযোজন হল বিদ্যুতের বিল বাকি রয়েছে বলে মেসেজ করা। বিদ্যুতের বিলের নাম করে ফোনে লিঙ্ক। ক্লিক করতেই অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও হয়ে যাচ্ছে টাকা। এভাবেই লক্ষাধিক টাকা উধাও হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ। কাউকেই রেয়াত করা হচ্ছে না। আর এবার সেই একই ধরনের মেসেজ এসেছিল নরেন্দ্রপুরের বাসিন্দা রাহুল মিত্রর হোয়াটস অ্যাপে। এদিকে তাঁর নামে কোনও বিদ্যুৎ সংযোগই নেই। তাহলে কেমন করে তাঁর বিল বকেয়া দেখাতে পারে! মেসেজ আসার পরই বিষয়টি বুঝতে পেরেছিলেন তিনি। তারপর বিষয়টি জানার জন্য হোয়াটস অ্যাপে আসা নম্বরে ফোন করে প্রতারিতদের সঙ্গে কথা বলেন।এই প্রতারণা প্রসঙ্গে রাহুল মিত্র বলেন, “মেসেজ আসার পরই আমি বিষয়টা বুঝতে পেরেছিলাম। কিন্তু, তারপরও তাদের ফোন করি। তারা যেমন যেমন বলে তেমই করি। এরপর পেমেন্টের বিষয়টি আসার পরই আমি তাদের জিজ্ঞাসা করি বিলটা কার নামে রয়েছে। তবে তারা সেটা বলতে পারেনি। এরপর আমি পেমেন্ট না করে ফোন কেটে দিই। সেই থেকেই আমাকে হুমকি দিতে শুরু করে প্রতারিতরা। কারণ আমার নামে যখন কোনও বিদ্যুৎ সংযোগ নেই তখন কেমন করে আমার নামে বকেয়া বিলের মেসেজ আসবে! হুমকি দেওয়া শুরু হতেই সোজা থানায় এসে অভিযোগ জানিয়েছি। প্রতারিতরা বলছে আমার হোয়াটস অ্যাপ হ্যাক করেছে, এবার ফেসবুক মেল সব হ্যাক করবে যতক্ষণ না পর্যন্ত টাকা দেবে।” ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

16 − six =