গত বছরের জুন মাসের করমন্ডল এক্সপ্রেসের স্মৃতি ফিরলো সোমবার সকালে কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের ভয়াবহ দুর্ঘটনায়। এদিন সকাল পৌনে নটা নাগাদ নিউ জলপাইগুড়ি ছাড়ার পর রাঙাপানি স্টেশনের কাছে শিয়ালদহ মুখী কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসকে পিছন থেকে ধাক্কা মারে একই লাইনে আসা একটি মালগাড়ি।ঘটনার অভিঘাতে দুমড়ে মুছড়ে যায় কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের পেছনের দিকে থাকা দুটি সাধারন শ্রেণীর কামরা সহ আরো বেশ কিছু কামরা। এদিন এই দুর্ঘটনায় গুসকরা পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা বিউটি বেগমের মৃত্যু হয়। এদিন গুসকরার ইটেচাঁদার বাড়িতে মৃত্যু সংবাদ এসে পৌঁছায় দুপুর নাগাদ।

সূত্রের খবর, বিউটি বেগমের স্বামী হাসমত শেখ জলপাইগুড়িতে একটি বেসরকারি সংস্থার গাড়ির ড্রাইভারের কাজ করতেন ৬ আগে থেকেই। বিউটি স্বামীর কাছেই থাকতেন জলপাইগুড়িতে। দিন ১৫ আগে , বিউটি গুসকরার নিজ বাড়ি থেকে স্বামীর কাছে যান। এদিন পরবের জন্য বাড়ি ফিরছিলেন,সকালে স্বামীর এক পরিচিত বিউটি বেগমকে ডাউন কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে তুলে দেন বাড়ির উদ্দেশ্যে। তারপরই বাড়িতে আসে দুর্ঘটনার সংবাদ। কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসের দুর্ঘটনা হয়েছে শুনে বিউটির স্বামী ঘটনাস্থলে পৌঁছে স্ত্রীকে সনাক্ত করেন।

এদিন মৃতার মেয়ে সুনয়নী খাতুন বলেন – ” মায়ের সাথে শেষ বার কথা হয়েছিল ফোনে, মা ফোনে বলেছিল শেষের দিকের কামরায় উঠেছে, তারপর আর যোগাযোগ করতে পারিনি। ” পরে খবর পেলাম মায়ের মৃত্যু হয়েছে ট্রেন দুর্ঘটনায়।

এদিন মৃত্যু সংবাদ পৌঁছাতেই গুসকরার বাড়িতে পাড়া-প্রতিবেশীদের ভিড় ছিল। আজ ইদুজ্জোহা আনন্দের পরিবেশ ট্রেন দুর্ঘটনার ফলে এক নিমেষে বিষাদে পরিণত হয়েছে এই পরিবারের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

15 − eleven =