অনেকে বলেন, সিটি অফ ড্রিমস। স্বপ্ননগরী। যে শহরে এক বুক আকাঙ্খা নিয়ে এক তরুণ এসে পৌঁছেছিলেন কেরিয়ার গড়ে তুলতে। রাজধানী দিল্লি থেকে ট্রেনে চেপে সটান বাণিজ্যনগরীতে। মেরিন ড্রাইভ দিয়ে হাঁটতে হাঁটতে যিনি সংকল্প করেছিলেন, একদিন এই শহর তাঁর হবে।

কথা রেখেছেন সেদিনের সেই তরুণ। নাম-যশ-প্রতিপত্তি, সবই বানিয়েছেন। তাঁর বাজিগর পরিচিতির শুরুটাও হয়েছিল এই মুম্বই থেকেই। তবু, শাহরুখ খানের (Shah Rukh Khan) আক্ষেপ রয়ে গিয়েছে এই শহরে তাঁর আইপিএলের দল কলকাতা নাইট রাইডার্সের রেকর্ড নিয়ে। আইপিএলের (IPL 2024) সতেরো বছরের ইতিহাসে মুম্বই ইন্ডিয়ান্সই কেকেআরের (MI vs KKR) সবচেয়ে বড় গাঁট। ৩২ বার মুখোমুখি হয়ে মুম্বই ইন্ডিয়ান্স জিতেছে ২৩ ম্যাচ। মাত্র ৯ ম্যাচে জয়ী কেকেআর।

মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের (Mumbai Indians) ঘরের মাঠ ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামের রেকর্ড আরও ভয়াবহ। এই মাঠে এখনও অবধি একবার মাত্র জিতেছে কেকেআর (Kolkata Knight Riders)। শাহরুখ খান তো টানা হার হজম করতে না পেরে একবার দলের ড্রেসিংরুমে গিয়ে বলেই ফেলেছিলেন, এই শহর আমাকে বাদশা, বাজিগর বলে ডাকে। এখানে একবার অন্তত জিতে আমার মুখরক্ষা করো। জিতেছিল কেকেআর। একবারই। সেই ২০১২ সালে। সেই জয়ের রাতেও ছিল কাঁটা। আনন্দের আতিশয্যে মাঠে ঢুকে নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়েছিলেন শাহরুখ। তাঁকে নির্বাসিত করেছিল মুম্বই ক্রিকেট সংস্থা।

সেই নির্বাসন উঠে গিয়েছে। মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের বিরুদ্ধে কেকেআরের হতশ্রী রেকর্ডও কি এবার বদলাবে? শেষ দুবারের সাক্ষাতে দুবারই জিতেছে কেকেআর। শুক্রবার কী হবে?

২০১২ সালে ১৫ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা হয়েছিলেন সুনীল নারাইন। চলতি আইপিএলে তাঁর পুনর্জন্ম হয়েছে যেন। ব্যাট হাতে ঝড় তুলছেন। বল হাতেও কৃপণ। শুক্রবার নাইট শিবির তাকিয়ে থাকবে তাঁর দিকে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

19 − 8 =