গর্ভপাতের আইনের ক্ষেত্রে মুছল বৈষম্য। বিবাহিতদের মতো অবিবাহিত নারীরাও একইভাবে একই নিয়মে আইনি পথে সুরক্ষিত গর্ভপাতের অধিকারী এখন থেকে। এদিন বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ের নেতৃত্বাধীন বেঞ্চ জানায়, সমস্ত মহিলাই সুরক্ষিত ও আইনি গর্ভপাতের অধিকারী।বিয়ে হয়েছে কী হয়নি তার ভিত্তিতে কোনও ভেদভাব করা যায় না। আইনের চোখে সবাই সমান।

সু্প্রিম কোর্টের জানায়, গর্ভপাতের ক্ষেত্রে বিবাহিত অবিবাহিতদের মধ্যে ভেদাভেদ করা অসাংবিধানিক। মেডিক্যাল টার্মিনেশন অফ প্রেগনেন্সি অ্যাক্ট অনুযায়ী, ২০ থেকে ২৪ সপ্তাহের মধ্যে বিবাহিত-অবিবাহিত সমস্ত মহিলারাই গর্ভপাত করাতে পারবেন।

একইসঙ্গে ২০২১ সালের তৈরী হওয়া মেডিক্যাল টার্মিনেশন অফ প্রেগনেন্সি অ্যাক্ট এর সংশোধনের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।এতদিন MTA Act এ গর্ভাবস্থার ২০-২৪ সপ্তাহ পর্যন্ত গর্ভপাত করাতে পারতেন বিবাহিত মহিলারা।কিন্তু অবিবাহিতদের তা করতে অনুমতি দিত না আইন। শীর্ষ আদালত এদিন পর্যবেক্ষণ করে জানায়,বর্তমান সময়ের চাহিদা অনুযায়ী বিয়ের থেকে একটা মানুষের মৌলিক অধিকার অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত। সমাজের বাস্তবিক ভাবনাকে মাথায় রেখে আইনের পরিবর্তনের দরকার রয়েছে। কারণ দেশে বর্তমানে আইনি বাধার কারণেই ৬০ শতাংশ গর্ভপাত বেআইনি ও অসুরক্ষিত পথেই হয়।

শুনানিতে বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় জানায়, লিভ ইন রিলেশনশিপে থাকা অবিবাহিত মহিলাকে গর্ভপাতের অধিকার থেকে বাইরে রাখা অসাংবিধানিক ।Rights of Reproductive Autonomy অনুযায়ী অবিবাহিত-বিবাহিত উভয়েরই সমান অধিকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

ten − 9 =